অমির সব নাটকে পলাশ কেন?

কাজল আরিফিন অমি ও জিয়াউল হক পলাশ নাম দুটি যেন একে অন্যের পরিপূরক। এ পর্যন্ত পলাশ যতগুলো নাটকে অভিনয় করেছেন তার সিংহভাগই অমির পরিচালিত। আবার অন্যভাবে বলা যায় অমির পরিচালায় প্রায় সবগুলো নাটকেই থাকেন পলাশ।

দুজনের জুটিতে তুমুল জনপ্রিয়তা পায় ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’। গত কয়েক বছরে কোনো নাটক এতটা জনপ্রিয়তা পায়নি। এই নাটকে পলাশের করা ‘কাবিলা’ চরিত্রটি এখনো দর্শকের মুখে মুখে।

নাটকের ‘কাবিলা’র ভিড়ে যেন নিজের আসল নামটিই হারিয়ে ফেলেছেন পলাশ! নতুন বছরের শুরু থেকেই নতুন চমক নিয়ে হাজির হচ্ছেন অমি-পলাশ জুটি। ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট সিজন: ৪’ দিয়ে আবারও দর্শকদের মাতাতে প্রস্তুত দুজন।

এর আগে চলতি মাঝের মাঝামাঝিতে নাটকটি নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে মুখ খুলবেন অমি। দেবেন এ সংক্রান্ত বিশেষ একটি সারপ্রাইজও।অমি-পলাশ জুটির নাটক মানেই ‘হিট’। একের বাইরে অন্যকে দেখা যায় খুব কমই।

অনেকের ধারণা তারা একে অপরকে ছাড়া কোনো কাজই করেন না! এ নিয়ে দর্শকমহলে একটা প্রশ্নও ঘুরপাক খায়। আর তা হলো, অমির সব নাটকে জিয়াউল হক পলাশ কেন? ঢাকা পোস্টের কাছে এই প্রশ্নের উত্তর জানালেন অমি।

তিনি বলেন, ‘সব নয়, আমার মেক্সিমাম নাটকে জিয়াউল হক পলাশ থাকে। এর প্রথম কারণ হচ্ছে পলাশ আমার অ্যাসোসিয়েট ডিরেক্টর। যার ফলে তাকে আমি সবচেয়ে বেশি চোখের সামনে দেখি।

দ্বিতীয় কারণ পলাশের অ্যাক্টিংটা আমার হাত দিয়ে যেহেতু শুরু। আর ও হচ্ছে আমাকে অনেক বেশি ট্রাস্ট করে। আমি ওকে ট্রাস্ট করি। আমি কোনো চরিত্র যখন ভাবি তখন পলাশকে বললে, পলাশ সেটা অনেক বিশ্বাসযোগ্যভাবে উপস্থাপন করতে পারে।’

এ প্রসঙ্গে বলিউডের একটা উদাহরণ টেনে অমি বলেন, “অনুরাগ কাশ্যপের ‘গ্যাংস অব ওয়াসিপুর’ রিলিজের পর তার সঙ্গে অনেকগুলো সিনেমা করেছেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী।

এর কারণ কিন্তু শুধুমাত্র আস্থার জায়গা তৈরি হওয়া। আর কোনো কারণে নেই। ঠিক তেমনি আমার যখনই কোনো চরিত্র মাথায় আসে। মনে হয় এটা আমি পলাশকে নিয়ে ইজিলি করাতে পারব।

সো, আমার কাছে পলাশের চেয়ে বেটার অপশন না থাকলে আমি সব সময়ই পলাশকে নেবো। দেখা গেছে, আমার পরবর্তী ৩০টা নাটকেও পলাশ আছে। থাকতেই পারে। আমি কীভাবে ভাবতেছি পলাশ কীভাবে সেটা প্রেজেন্ট করছে সেটাই বড় ব্যাপার।’

পলাশের মধ্যে এমন কী আছে যা সমসাময়িক অন্যদের মধ্যে নেই? এমন প্রশ্নের জবাবেব কাজল আরিফিন অমির ভাষ্য, ‘পলাশ খুব সহজেই ক্যাচ করতে পারে। আপনি যে ভিশনটা তাকে বলবেন পলাশ সেটা খুব সহজে ধরে ফেলতে পারে।

এবং সেটার আউটপুট খুব সুন্দর দিতে পারে।’এই নির্মাতা আরও যোগ করেন, ‘আর যেহেতু পলাশ আমার সহকারী আমার ভিশন সম্পর্কে শিল্পীর বাইরেও একটা আইডিয়া থাকে।

সে তো অভিনয় শুরুর অনেক আগে থেকে আমার সঙ্গে কাজ করে। সো জানে যে, অমি ভাই কী চায়, কীভাবে দেখতে চায়, কীভাবে শর্ট নিতে চায়। যার জন্য পলাশকে বেশি কাস্ট করা।’

Check Also

প্রীতি জিনতাকে চিনতে না পারায় ক্ষ’মা চাইলেন অভিনেতা

বিমানে দেখা হলো দু’জনের, কথাও হলো বেশ কিছুক্ষণ। কিন্তু তার পরেও প্রীতি জিনতাকে চিনতে পারেননি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *